বড় জয়ে ‘ফিরল’ বার্সা, দুর্দান্ত লিও মেসি

51

বড় জয়ে ‘ফিরল’ বার্সা, দুর্দান্ত মেসি
মায়োর্কাকে ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়ে লা লিগায় নিজেদের ‘নতুন ফেরা’ উদযাপন করল বার্সেলোনা। বার্সার এই দুর্দান্ত জয়ে গোল করেছেন মার্টিন ব্র্যাথওয়েট, আর্তুরো ভিদাল, জর্দি আলবা ও লিওনেল মেসি। তবে দুই গোলে অ্যাসিস্ট আর দলের শেষ গোল করে রাতটা স্মরণীয় করে রাখলেন মেসিও।

 

ফুটবলভক্তদের অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে ক’দিন আগেই ফিরেছে স্প্যানিশ লা লিগা। তবে বড় দলগুলোর ম্যাচ দেখার অপেক্ষা ঘুচল আজ। কারণ করোনা মহামারির কারণে স্থগিত হয়ে যাওয়ার ৯৭ দিন পর এই প্রথম মাঠে নামল মেসি-সুয়ারেসদের বার্সেলোনা। তবে এর মাঝে বদলে অগণিত মানুষের জীবন, বদলে গেছে ফুটবলও। করোনা ঠেকাতে চালু করা হয়েছে বেশকিছু নতুন নিয়ম।

মেসিরা যখন মায়োর্কার মাঠে নামলেন, অন্যান্য ম্যাচ ডে’র মতোই এ রাতেও মেসিরা মাঠে নামতেই দর্শকের উল্লাসের আওয়াজ পাওয়া গেল। তবে এই উল্লাস বাস্তব নয়। ভার্চুয়াল দর্শক আর কৃত্রিম আওয়াজ, যা ভিডিও গেম থেকে ধার করা। ফলে ফেসবুক লাইভে দর্শক দেখা গেলেও আদতে গ্যালারি ছিল পুরো খালি। মেসিদের ম্যাচে যা করোনার আগে ছিল অবিশ্বাস্য ঘটনা। তবে ভার্চুয়াল দর্শক তো আর খেলোয়াড়দের চোখে পড়ে না। যাই হোক এমন দৃশ্য এখন নিয়মিত হজম করতে হবে ফুটবলভক্তদের।

 

শনিবার বাংলাদেশ সময় দিবাগত রাত ২টায় মেসিরা স্টেডিয়ামে ঢুকেছেন মাস্ক আর গ্লাভস পরে। মাঠে গোল উদযাপনেও বজায় রেখেছেন যথাসাধ্য শারীরিক দূরত্ব। আর বার্সাকে গোল উদযাপনের উপলক্ষ এনে দিয়েছেন আর্তুরো ভিদাল এবং মার্টিন ব্র্যাথওয়েট, আলবা ও মেসি।

পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা কাতালান জায়ান্টরা করোনা বিরতি বেশ ভালোই কাজে লাগিয়েছে। পুরো ফিট মেসিকে শুরু থেকেই নামতে দেখা ছিল খুদে জাদুকরের ভক্তদের জন্য দারুণ স্বস্তির কারণ। ফিট হয়ে ফিরেছেন অস্ত্রোপচারের পর অনিশ্চিত হয়ে পড়া লুইস সুয়ারেসও। তবে উরুগুইয়ান স্ট্রাইকারকে এ রাতে বেঞ্চ থেকেই শুরু করতে হলো। তা ছাড়া নতুন নিয়মে ৫ জন বদলি খেলোয়াড় রাখার নতুন নিয়মও কিকে সেতিয়েনের জন্য স্বস্তি হয়ে এসেছে।

এবার আসা যাক আসল খেলায়। খেলার মাত্র ৬৫ সেকেন্ডে জর্দি মিনিটেই গোল করে ম্যাচের গতিপথ অনেকটা ঠিক করে দেন ভিদাল। ডি-বক্সের কাছ থেকে বল দখল করে আলবার দিকে বল পাঠান ফ্র্যাংকি ডি ইয়ং। সঙ্গে সঙ্গে আলতো ক্রসে বল ভিদালের পথে তুলে দেন আলবা আর দারুণ এক হেডে বল জালে জড়িয়ে দেন চিলিয়ান মিডফিল্ডার।

গোল হজম করে এলোমেলো হয়ে পড়া মায়োর্কা অবশ্য আস্তে আস্তে গুছিয়ে নেয়। আক্রমণে ওঠে আসে স্বাগতিকরা। তবে মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগান দেয়াল হয়ে দাঁড়ানোয় বিপদ থেকে বেঁচে গেছে সফরকারীরা। উল্টো ৩৭তম মিনিটে মেসির অসাধারণ আ্যসিস্ট থেকে বার্সার জার্সিতে নিজের প্রথম গোলের দেখা পান ব্র্যাথওয়েট।

প্রতিপক্ষের রক্ষণে বল পেয়ে ডিফেন্ডারের উপর দিয়ে তা ব্র্যাথওয়েটের দিকে পাঠিয়ে দেন ডি জং। ডিফেন্সের জটলায় থাকা মেসির দূরদর্শী হেড বল ঠিক জায়গামতো যেতেই ডান পায়ের ভলিতে লক্ষ্যভেদ করেন ব্র্যাথওয়েট। অবশ্য গোলের বাঁশি বাজানোর আগে ভিএআর’র সহায়তা নেন রেফারি। বার্সা এগিয়ে যেয় ২-০ গোলে।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকে মায়োর্কা খেলায় ফেরার সবরকম চেষ্টাই করে। কিন্তু এবারও বার্সার রক্ষণ অটুট থাকে। বরং ৫৭তম মিনিটে গ্রিজম্যানের বদলে ইনজুরি কাটিয়ে ফেরা সুয়ারেস নামতেই কাতালানদের আক্রমণের ধার বেড়ে যায়। তিনি মাঠে নানার মিনিটখানেক পরেই দারুণ এক গোলের সুযোগ তৈরি করেন। কিন্তু পোস্টের একদম কাছ থেকে পা লাগিয়েও বল সাইডলাইনে পাঠিয়ে নিজের দ্বিতীয় গোলের সুযোগ কাজে লাগাতে পারেননি ব্র্যাথওয়েট।

৭৯তম মিনিটে দুর্দান্ত এক গোল করে বার্সার বড় জয় নিশ্চিত করেন আলবা। শুরুতে অ্যাসিস্ট করেছিলেন, শেষটায় পেলেন গোল।স্প্যানিশ সেন্টারব্যাকের এই গোলে সরাসরি ভূমিকা ছিল মেসিরও। তিন মাসের বিরতি যে বার্সা অধিনায়কের খেলায় কোনো মরিচা ধরাতে পারেনি তা প্রমাণ করে দিলেন তিনি। বাঁ প্রান্ত থেকে তার বাড়িয়ে দেওয়া বল ধরেই অরক্ষিত মায়োর্কা রক্ষণে ঢুকে বাঁ পায়ের শটে গোল করেন আলবা। আর শেষ মুহূর্তে আসে সেই মাহেন্দ্রক্ষণ, প্রতিপক্ষের তিন ডিফেন্ডারকে বোকা বানিয়ে পায়ের জাদুতে গোলরক্ষককে পরাস্ত করে মৌসুমে ২০তম গোলে করেন এই আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড।

এই জয়ে দ্বিতীয় স্থানে থাকা রিয়াল মাদ্রিদের চেয়ে ৫ পয়েন্ট এগিয়ে গেল বার্সা। ২৮ ম্যাচ শেষে বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের সংগ্রহ ৬১ পয়েন্ট। রিয়াল অবশ্য এক ম্যাচ কম খেলেছে। তবে ‘নতুন স্বাভাবিক’ ফুটবল দুনিয়ায় পা দেওয়ার আগে বেশ চাপেই থাকবে জিনেদিন জিদানের শিষ্যরা।